২৭. জরায়ু

সহযোগী মূলক পরভিাষা

রূপক পরিভাষা

সহযোগী রূপক পরভিাষা

২৭. জরায়ু
Uterus (ইউটেরাস)/ ‘الرحم’ (আররেহেম)

ভূমিকা (Introduction)
এটি বাঙালী পৌরাণিক চরিত্রায়ন সত্তা সারণীবাঙালী পৌরাণিক মূলক সত্তা পরিবারের একটি গুরুত্বপূর্ণ বাঙালী পৌরাণিক মূলক সত্তা এবং জরায়ু পরিবার প্রধান বিশেষ। এর বাঙালী পৌরাণিক রূপক পরিভাষা নিধুয়া। এর বাঙালী পৌরাণিক উপমান পরিভাষা কুঞ্জ, ঢাকা, পাতাল, ফুল স্বর্গপুর। এর বাঙালী পৌরাণিক চারিত্রিক পরিভাষা অম্বর, আকাশ, বৈকুণ্ঠ মিথিলা এবং এর বাঙালী পৌরাণিক ছদ্মনাম পরিভাষা কাশী, দেবধাম, ব্রজধাম, মথুরা স্বর্গধাম। এটি; একটি বাঙালী পৌরাণিক উপমান প্রধান মূলক সত্তা

অভিধা (Appellation)
জরায়ু (বাপৌমূ)বি গর্ভাশয়, গর্ভভাণ্ড, uterus, ‘الرحم’ (আররেহেম), womb (আঞ্চ) পেট, তলপেট (রূপ্রশ) কাশী, ঢাকা, মথুরা, বৈকুণ্ঠ, মূলাধার, স্বাধিষ্ঠান (ইংপ) heaven, paradise (ইপ) বেহেস্ত (ফা.ﺒﻬﺷﺖ) (ইপ) জান্নাত (.ﺠﻨﺎﺖ), আরশ (.ﻋﺭﺶ), ক্বলব (.ﻗﻟﺐ), মদিনা (.ﻤﺪﻴﻧﻪ) (দেপ্র) এটি বাঙালী পৌরাণিক চরিত্রায়ন সত্তা সারণীজরায়ু পরিবার প্রধান বিশেষ (সংজ্ঞা) সাধারণত; স্ত্রী জননতন্ত্রের সন্তান ধারণ ও লালনপালনকারী অন্ত্রকে বাংলায় ‘জরায়ু বলা হয় (বাপৌছ) কাশী, দেবধাম, ব্রজধাম, মথুরা ও স্বর্গধাম (বাপৌচা) অম্বর, আকাশ, বৈকুণ্ঠ ও মিথিলা (বাপৌউ) কুঞ্জ, ঢাকা, পাতাল, ফুল ও স্বর্গপুর (বাপৌরূ) নিধুয়া (বাপৌমূ) জরায়ু।

Viviparous [ভিভিপ্যারাস] (GMP)adj জরায়ুজ, জরায়ুসংক্রান্ত, জরায়ুমধ্যস্থ, গর্ভ বা জরায়ুর ভিতরে সন্তান রূপে বৃদ্ধি পায় এমন, ডিম্বের পরিবর্তে সন্তান বা বাচ্চা প্রসবকারিনী, uterine (প্র) এটি; অষ্টাদশ পুরাণ প্রণেতা বেদব্যাসের নামের ইংরেজি অনুবাদ বিশেষ {}

জরায়ুর সংজ্ঞা (Definition of uterus)
শ্বরবিজ্ঞানে; স্ত্রী জননতন্ত্রের সন্তান ধারণ ও লালনপালনে নিয়োজিত অন্ত্রকে জরায়ু বলে।

পারিবারিক অবস্থান (Domestic position)

মূলক

রূপক উপমান চারিত্রিক

ছদ্মনাম

জরায়ু নিধুয়া কুঞ্জ, ঢাকা, পাতাল, ফুল ও স্বর্গপুর অম্বর, আকাশ, বৈকুণ্ঠ ও মিথিলা কাশী, দেবধাম, ব্রজধাম, মথুরা ও স্বর্গধাম

প্রাথমিক পরিপত্র (Primary circular)
জরায়ুর আভিধানিক, রূপক, উপমান, চারিত্রিক ও ছদ্মনাম পরিভাষা।

বাঙালী পৌরাণিক মূলক সত্তা; জরায়ু।
বাংলা আভিধানিক প্রতিশব্দ; উদর, গর্ভ, গর্ভকেশর, গর্ভকোষ, গর্ভাগার, গর্ভাশয় ও ডিম্বাশয়।
আঞ্চলিক প্রতিশব্দ; তলপেট, পেট
বাঙালী পৌরাণিক রূপক; নিধুয়া।
বাঙালী পৌরাণিক উপমান; অন্তঃকরণ, অন্তঃপুর, অন্তর, অন্তরীক্ষ, অম্বর, আকাশ, আরশি, উদ্যান, উর্ণনাভ, কানন, কান্তার, কুঞ্জ, কুঞ্জকানন, কুঞ্জবন, কুঠরি, কুঠি, খাঁচা, খোপ, খোপর, গোলা, চিলেকোঠা, জলাশয়, দর্পণ, দীঘি, নগর, নগরী, নভ, নিকুঞ্জ, নিকেতন, নিলয়, নীড়, পাতাল, পাথার, পুষ্পোদ্যান, ফলক, ফুলবন, বিহার, ভাঁড়, ভাণ্ড, ভাণ্ডার, ভিস্তি, মঞ্জুষা, মটকা, মধ্যদেশ, মধ্যপ্রদেশ, মধ্যস্থল, মহাকাশ, মহানগর, মহানগরী, মহাব্যোম, মহাশূন্য, মহাসমুদ্র, মহাসাগর, মহাসিন্ধু, মুকুর, মৌচাক, রাজকোষ, রাজধানী, রাজস্থান, শ্যামবাজার, সমুদ্দুর, সমুদ্র, সরোবর, সাগর, সায়র, সিন্ধু, হর্ম্য, হাট, হৃদকমল, হৃদয়, হৃদয়মন্দির, হৃদাকাশ ও হৃদাসন।

 বাঙালী পৌরাণিক চারিত্রিক; অবন্তী, অর্ণব, অলকা, কাশ্মীর, কুবের, কুসুম, কৌশিকী, গর্গর, গৌরীসেন, চম্পা, জরথুস্ত, ধনদ, ধনেশ, ধনেশ্বর, পুলস্ত্য, বারিদ, বারিশ, বিশাল, বেদব্যাস, মধুমতী, মহার্ণব, মিথিলা, রত্নাকর ও সুধর্মা।

বাঙালী পৌরাণিক ছদ্মনাম; অক্ষয়লোক, অধিষ্ঠান, অনূপ, অন্নকুট, অন্নকোট, অন্নক্ষেত্র, অন্নছত্র, অব্জ, অমরকণ্টক, অমরধাম, অমরলোক, অমরা, অমরাবতী, অমর্ত্য, অমর্ত্যলোক, অমৃতলোক, অম্বুদ, অম্বুধি, অম্বুনাথ, অন্বুনিধি, অম্বুরাশি, অম্ভোধি, অম্ভোনিধি, আজ্যপা, আরসি, আর্যমার্গ, আলয়, আস্পদ, ইন্দ্রপুরী, ইন্দ্রপ্রস্থ, ইন্দ্রপ্রাসাদ, ইন্দ্রলোক, উজ্জয়নী, উজ্জ্বয়িনী, উদধি, উদয়গিরি, উদায়াচল, উপপ্লব্য, উল্টি, ঊর্ধ্বলোক, ঊর্ধ্বস্থ, ঊর্মিমালী, ঋষভ, একচক্রা, ঔষধি, কঞ্জুষ, কণ্ডোল, কমলিনী, কম্বোজ, কর্পূরভাঁড়, কলাবতী২, কাশী, কাশীধাম, কাশীপুর, কাশীস্থল, কাশীস্থান, কুঞ্জবাটিকা, কুঞ্জবাটী, কুট, কুট্টিম, কুমার, কুম্ভকার, কূটাগার, কূষ্মাণ্ড, কৃষ্ণদ্বৈপায়ন, কোটীশ্বর, কোঠা, কোরা, কোশ, কোষ, কোষাগার, কোষ্ঠ, কৌশাম্বী, ক্ষীরাব্ধি, ক্ষীরোদ, ক্ষীরোধ, ক্ষীরোধি, খগোল, খলপা, খাণ্ডিক, গগনপট, গগনমণ্ডল, গগনাঙ্গন, গন্ধমাদন, গন্ধর্বলোক, গিরিদুর্গ, গিরিব্রজ, গুদাম, গোফা, গোলকধাম, গোলকপুর, গোলাঘর, গোলাবাড়ি, গোলোক, চন্দ্রলোক, চন্দ্রশালা, চন্দ্রশালিকা, চম্পকারণ্য, চামকুঠি, চিত্রশাল, চিত্রশালা, চিত্রাগার, চিত্রালয়, চৈত্য, জগন্নাথক্ষেত্র, জনাশ্রয়, জলগর্ভা, জলদা, জলদুর্গ, জলধি, জলনিধি, জলময়ী, জলাধার, টাকশাল, ঠাকুরঘর, ঠাকুরবাড়ি, ঢাকা, তক্ষশীলা, তক্ষা, তপঃস্থলী, তপলোক, তুন্দি, তোয়দনিধি, তোয়ধি, তোয়রাশি, ত্রিবিষ্টপ, ত্রিহুত, থানা, দরদ, দিব্যলোক, দিল্লি, দীর্ঘিকা, দুর্গ, দেউল, দেবগৃহ, দেবধাম, দেবভূমি, দেবমাতৃক, দেবাগার, দেবায়তন, দেহারা, দেহেরা, দ্যাবা, দ্যু, দ্যো, দ্বারকা, দ্বারবতী, দ্বারাকা, দ্বারাবতী, দ্বারিকা, দ্বৈতবন, ধনদাতা, ধনদেব, ধনদেবতা, ধনপতি, ধনভাণ্ডার, ধনস্থান, ধনাগার, ধনাধার, ধনাধিপ, ধনাধিপতি, ধনাধ্যক্ষ, ধর্মমন্দির, ধ্রুবলোক, নক্ষত্রপথ, নক্ষত্রলোক, নগরচত্বর, নদীকান্ত, নদীপতি, নন্দীসর, নভগ, নভস্থল, নভোমণ্ডল, নারায়ণক্ষেত্র, নিকেত, নিধান, নিধি, নিবাস, নিবেশ, নিরাক, নিরাগ, নির্মাতা, নীরদ, নীলকুঠি, নীলাম্বু, নীলাম্বুধি, নৃপাসন, নৈমিষারণ্য, পটুয়া, পট্ট, পদ্মাকর, পয়োনিধি, পরব্যোম, পর্বতগুহা, পাতালপুরী, পাতিল, পান্থনিবাস, পান্থশালা, পারাবার, পিণ্ডী, পিতৃলোক, পুণ্যক্ষেত্র, পুণ্যযোগ, পুণ্যপুকুর, পুর, পুরী, পূর্বসমুদ্র, পৈল, প্রচেত, প্রচেতা, প্রভাপুর, প্রভাবতী, প্রেমকানন, প্রেমখানা, প্রেমদানি, প্রেমসাগর, প্রেমেরহাট, ফুল, বদরিকাশ্রম, বনারস, বনিজ, বন্দিঘর, বন্দিশালা, বন্ধখানা, বন্ধনাগার, বন্ধনালয়, বরুণালয়, বর্ষুক, বারানসী, বারিগর্ভ, বারিদুর্গ, বারিধর, বারিধানী, বারিধি, বারিনিধি, বারিনাথ, বারিবাহ, বারিবাহক, বারিমুখ, বারিযন্ত্র, বারিরাশি, বারীন্দ্র, বারিন্দ্রাণী, বিরজাধাম, বিরাটরাজ, বিলাসকানন, বিশাই, বিশ্বকর্মা, বিষ্ণুযশা, বৃহৎক্ষেত্র, বৃহৎগর্ভ, বেদিকা, বেদী, বেনারস, বৈকুণ্ঠ, বৈজয়ন্ত, বৈবণিক, বৈশ্রবণ, ব্রজ, ব্রজধাম, ব্রহ্মদেশ, ব্রহ্মপুরী, ব্রহ্মলোক, ভবসমুদ্র, ভবসাগর, ভবসিন্ধু, ভাঁড়ার, ভাণ্ডাগার, ভাবসমুদ্র, ভাবসাগর, ভারতমহাসাগর, ভারা, ভুবঃ, ভূগর্ভ, ভূস্বর্গ, ভূমিগর্ভ, ভৃঙ্গার, ভোগপাল, ভোজ, মউচাক, মগধ, মঞ্জুল, মঞ্জুলা, মণিকুন্তলা, মতিঝিল, মৎস্যদেশ, মথুরা, মধুকোষ, মধুক্রম, মধুচক্র, মধুচ্ছত্র, মধুজালক, মধুপুর, মধুপুরী, মধুবন, মধুমতীপুরী, মরুদ্বীপ, মরূদ্যান, মর্কটজাল, মর্কটবাস, মর্মস্থল, মর্মস্থান, মহাকবি, মহাকরণ, মহিষ্মতী, মহেন্দ্রনগরী, মহেন্দ্রপুরী, মহেন্দ্রভবন, মালঞ্চ, মালভূমি, মুদ্রাযন্ত্র, মুলতান, মূলাধার, মূলাধারচক্র, মেরু, মোক্ষধাম, যক্ষ, যক্ষপতি, যক্ষপুরী, যক্ষরাজ, যখ, যবদ্বীপ, যাদঃপতি, রত্নগর্ভ, রত্নগর্ভা, রত্নপ্রসবিত্রী, রত্নপ্রসবিনী, রত্নপ্রসূ, রত্নবণিক, রত্নময়, রাজতক্ত, রাজপাট, রাজপুরী, রাজপ্রাসাদ, রাজবাটি, রাজবাড়ি, রাজভবন, রাজরাজ, রাজশয্যা, রাজসদন, রাজসিংহাসন, রাজান্তঃপুর, রাজাবাস, রাজাসন, লীলাভূমি, লোহিতসাগর, শস্যাগার, শাল, শালা, শিল্পী, শিশুমার, শৃঙ্গরেব, শৃঙ্গরেবপুর, শ্রীক্ষেত্র, শ্রীঘর, শ্বেতদ্বীপ, সংঘারাম, সংসদভবন, সঙ্ঘারাম, সত্র, সদন, সন্তাগার, সভাকক্ষ, সভামণ্ডপ, সভাস্থল, সভাস্থান, সমাধিমন্দির, সমুন্দর, সমুদ্র, সিংহাসন, সিদ্ধাশ্রম, সুকালিন, সুধাপাত্র, সুধাসমুদ্র, সুধাসিক্ত, সুধাসিন্ধু, সুবর্ণগর্ভা, সুবর্ণদ্বীপ, সুবর্ণপক্ষা, সুবর্ণবণিক, সুবর্ণময়, সুমেরু, সুরপুর, সুরলোক, সুরাধার, সুরাধারী, সূতিকাগার, সূতিকাগৃহ, সূতিগৃহ, সোমপা, সৌধ, স্বদেশ, স্বরঃ, স্বর্গ, স্বর্গধাম, স্বর্গপুর, স্বর্ণগর্ভ, স্বর্ণগর্ভা, স্বর্ণপ্রসূ, স্বর্ণবণিক, স্বর্ণভূমি, স্বাধিষ্ঠান, হট্টমন্দির, হবির্ভুজ, হিন্দুস্থান, হিমগিরি, হিমঘর, হিমবৎ, হিমসাগর, হিমাগার, হিমাচল, হিমাদ্রি, হিরণ্যদ, হিরণ্যনাভ, হিরণ্যপুর, হৃৎকমল, হৃদিমন্দির, হৃদিসরোবর ও হৈয়য়।

বাংলা, ইংরেজি ও আরবি (Bengali, English and Arabic)

বাংলা

ইংরেজি

আরবি

২৭. জরায়ু Uterus (ইউটেরাস) ‘الرحم’ (আররেহেম)
২৭/০১. নিধুয়া Beehive (বিহাইভ) ‘قفير’ (ক্বাফির)
২৭/০২. কুঞ্জ Hurst (হার্স্ট) ‘بستان’ (বুস্তান)
২৭/০৩. ঢাকা Pavilion (পেভিলিওন) ‘جناح’ (জুনাহ)
২৭/০৪. পাতাল Hades (হেডেস) ‘هاوية’ (হাবিয়া)
২৭/০৫. ফুল Asphodel (অ্যাস্ফাডেল) ‘سوسن’ (সাওইস্না)
২৭/০৬. স্বর্গপুর Olympus (অলিম্পাস) ‘مشيمة’ (মাশিমা)
২৭/০৭. আকাশ Sky (স্কাই) ‘سماء’ (সামায়া)
২৭/০৮. বৈকুণ্ঠ Olympus (অলিম্পাস) ‘ﺴﻼﻡ’ (সালাম)
২৭/০৯. মিথিলা Tripartite (ট্রাইপার্টাইট) ‘ثلاثي’ (ছালাসি)
২৭/১০. কাশী Grassy (গ্র্যাসি) ‘ﻋُﺸْﺑِﻰُّ’ (উশবিয়্যু)
২৭/১১. দেবধাম Shrine (শ্রাইন) ‘مرقد’ (মুরাক্বিদ)
২৭/১২. ব্রজধাম Matrix (মেট্রেক্স) ‘قالب’ (ক্বালেব)
২৭/১৩. মথুরা Comb (কোম্ব) ‘ﻋﺴﺎﻠﺔ’ (আসালা)
২৭/১৪. স্বর্গধাম Dreamland (ড্রিমল্যান্ড) ‘ﻧﻌﻴﻢ’ (না’ঈম)

জরায়ুর কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ উদ্ধৃতি (Some highly important quotations of uterus)
১.   “আপন গর্ভে রেখে পতি, অনূঢ়া হয় গর্ভবতী, জলের মাঝে জ্বলছে বাতি, আকাশে বসিয়া সাঁই।” (বলন তত্ত্বাবলী)
২.   “গর্ভে রেখে পিতা গেল, জন্মের পর মাতা মইল, দশদশায় কোলে নিল, মোহময় সংসারের জালে।” (বলন তত্ত্বাবলী- ১৯৪)
৩.   “ভবে যখন ছিলে মাটি, তিন পোড়ায় করেছে খাঁটি, দশমাস দশদিন গর্ভে রাখি, গড়েছে দেহখানা।” (বলন তত্ত্বাবলী- ১৭)
৪.   “শিশুকালে মরে গেছে মা, গর্ভে থুয়ে পিতা মরল, তারে চোখে দেখলাম না, কে করবে লালনপালন, কে দিবে সান্তনা।” (পবিত্র লালন- ৩৮৯/২)
৫.   “স্ত্রীর গর্ভে স্বামীর জন্ম, কে বুঝে তার নিগূঢ়-মর্ম, শোণিত শুক্রের পেলে গম্য, মনের আঁধার কেটে যায়।” (পবিত্র লালন- ৫৩৮/৩)

জরায়ুর প্রকারভেদ (Variations of uterus)
শ্বরবিজ্ঞানে; জরায়ু দুই প্রকার। যথা; ১.জীবিত জরায়ু ও ২.মৃত জরায়ু।

. জীবিত জরায়ু  (Alive uterus)
রজস্বলাদের গড়ে ১১ হতে ৪০ বছর পর্যন্ত নিয়মিতভাবে রজ আগমন করে এমন জরায়ুকে জীবিত জরায়ু বলে।

. মৃত জরায়ু  (Dead uterus)
রজ আগমন নিগমন বন্ধ এমন জরায়ুকে মৃত জরায়ু বলে। যেমন; ১ হতে ১০ বছরের কিশোরী, ৫০ ঊর্ধ্বা বৃদ্ধা; যাদের রজ বন্ধ হয়ে গেছে এমন রমণী। এছাড়াও; আরও দুই প্রকার মৃত জরায়ুর সন্ধান পাওয়া যায়। যথা; ১. ভ্রূণযুক্ত মৃত জরায়ু ও ২. ভ্রূণমুক্ত মৃত জরায়ু।

. ভ্রূণযুক্ত মৃত জরায়ু  (Embryonic dead uterus)
গর্ভধারণের কারণে রজ বন্ধ হয়ে গেলে তাকে ভ্রূণযুক্ত মৃত জরায়ু বলে।

. ভ্রূণমুক্ত মৃত জরায়ু  (Embryo-free dead uterus)
গর্ভধারণ না করেও কোনো কারণে রজ বন্ধ হয়ে গেলে তাকে ভ্রূণমুক্ত মৃত জরায়ু বলে।

জরায়ুর পরিচয় (Identity of uterus)
এটি বাঙালী পৌরাণিক চরিত্রায়ন সত্তা সারণীজরায়ু পরিবারের বাঙালী পৌরাণিক মূলক সত্তা বিশেষ। মানব ভ্রূণ ধারণ ও লালনপালনে নিয়োজিত অন্ত্রকে জরায়ু বলা হয়। অন্যদিকে; জীবের পালনকর্তা ও সৃষ্টিকর্তার অবতরণ ভূমিকে জরায়ু বলা হয়। অরজা বা কিশোরীদের জরায়ু মৃত। কারণ; তখনও তাদের জরায়ুতে রজ আগমন করে নাই। তেমনই; বৃদ্ধা রমণীদের জরায়ুও মৃত। কারণ; তখন তাদের জরায়ুতে রজ আর আগমন নিগমন হয় না। এজন্য; কিশোরী ও বৃদ্ধাদেরকে মৃতগর্ভা বলে। শ্বরবিজ্ঞানে; এগারো (১১) হতে চল্লিশ (৪০) বছরের মধ্যবর্তী ত্রিশ (৩০) বছর বয়সকে যৌবনকাল বলা হয়। রজস্রাব আগমনের পর হতে স্বাভাবিকভাবে বন্ধ হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত; যদি কখনও বল প্রয়োগ দ্বারা রজস্রাব বন্ধ রাখা হয়; তবে উক্ত রজস্বলাকেও সাময়িক মৃতগর্ভা বলা হয়। এছাড়া; রজস্রাব আগমন হতে নিয়মিত থাকাকালীন সময়ে রজস্বলাদের জীবিতগর্ভা বলা হয়। মৃতগর্ভা সাঁইসাধন ও কাঁইসাধনের জন্য প্রযোজ্য নয়। সুস্থ জীবিতগর্ভাই সাঁইসাধন ও কাঁইসাধনের জন্য প্রযোজ্য। পরিশেষে বলা যায়; শ্বরবিজ্ঞানে এর বাঙালী পৌরাণিক রূপক পরিভাষার ব্যবহার সর্বাধিক। এটি; রূপক-প্রধান বাঙালী পৌরাণিক মূলক সত্তা হওয়ায় পুরাণে তেমন ব্যবহার হয় না। তবে; এর রূপক, উপমান, চারিত্রিক ও ছদ্মনাম পরিভাষাগুলোই পুরাণে ব্যবহৃত হয়। শ্বরবিজ্ঞানে; রূপক ও ব্যাপক পরিভাষা ব্যবহার করা হয়। এজন্য; এর ব্যবহার বর্ণনা সাধারণ পাঠক শ্রোতাদের তেমন দৃষ্টিগোচর হয় না। আলোচ্য বাঙালী পৌরাণিক মূলক সত্তার বাঙালী পৌরাণিক রূপক, উপমান, চারিত্রিক ও ছদ্মনাম পরিভাষার আলোচনা যথাস্থানে করা হয়েছে।

(তথ্যসূত্র; আত্মতত্ত্ব ভেদ (৪র্থ খণ্ড); লেখক; বলন কাঁইজি)

তথ্যসূত্র (References)

(Theology's number formula of omniscient theologian lordship Bolon)

১ মূলক সংখ্যা সূত্র (Radical number formula)
"আত্মদর্শনের বিষয়বস্তুর পরিমাণ দ্বারা নতুন মূলক সংখ্যা সৃষ্টি করা যায়।"

রূপক সংখ্যা সূত্র (Metaphors number formula)

২ যোজক সূত্র (Adder formula)
"শ্বরবিজ্ঞানে ভিন্ন ভিন্ন মূলক সংখ্যা-সহগ যোগ করে নতুন যোজক রূপক সংখ্যা সৃষ্টি করা যায়; কিন্তু, গণিতে ভিন্ন ভিন্ন সংখ্যা-সহগ যোগ করে নতুন রূপক সংখ্যা সৃষ্টি করা যায় না।"

৩ গুণক সূত্র (Multiplier formula)
"শ্বরবিজ্ঞানে এক বা একাধিক মূলক-সংখ্যার গুণফল দ্বারা নতুন গুণক রূপক সংখ্যা সৃষ্টি করা যায়; কিন্তু, মূলক সংখ্যার কোন পরিবর্তন হয় না।"

৪ স্থাপক সূত্র (Installer formula)
"শ্বরবিজ্ঞানে; এক বা একাধিক মূলক সংখ্যা ভিন্ন ভিন্ন ভাবে স্থাপন করে নতুন স্থাপক রূপক সংখ্যা সৃষ্টি করা যায়; কিন্তু, মূলক সংখ্যার কোন পরিবর্তন হয় না।"

৫ শূন্যক সূত্র (Zero formula)
"শ্বরবিজ্ঞানে মূলক সংখ্যার ভিতরে ও ডানে শূন্য দিয়ে নতুন শূন্যক রূপক সংখ্যা সৃষ্টি করা যায়; কিন্তু, মূলক সংখ্যার কোন পরিবর্তন হয় না।"

< উৎস
[] উচ্চারণ ও ব্যুৎপত্তির জন্য ব্যবহৃত
() ব্যুৎপত্তির জন্য ব্যবহৃত
> থেকে
√ ধাতু
=> দ্রষ্টব্য
 পদান্তর
:-) লিঙ্গান্তর
 অতএব
× গুণ
+ যোগ
- বিয়োগ
÷ ভাগ

Here, at PrepBootstrap, we offer a great, 70% rate for each seller, regardless of any restrictions, such as volume, date of entry, etc.
There are a number of reasons why you should join us:
  • A great 70% flat rate for your items.
  • Fast response/approval times. Many sites take weeks to process a theme or template. And if it gets rejected, there is another iteration. We have aliminated this, and made the process very fast. It only takes up to 72 hours for a template/theme to get reviewed.
  • We are not an exclusive marketplace. This means that you can sell your items on PrepBootstrap, as well as on any other marketplate, and thus increase your earning potential.

পৌরাণিক চরিত্রায়ন সত্তা সারণী

উপস্থ (শিশ্ন-যোনি) কানাই,(যোনি) কামরস (যৌনরস) বলাই (শিশ্ন) বৈতরণী (যোনিপথ) ভগ (যোনিমুখ) কাম (সঙ্গম) অজ্ঞতা অন্যায় অশান্তি অবিশ্বাসী
অর্ধদ্বার আগধড় উপহার আশ্রম ভৃগু (জরায়ুমুখ) স্ফীতাঙ্গ (স্তন) চন্দ্রচেতনা (যৌনোত্তেজনা) আশীর্বাদ আয়ু ইঙ্গিত ডান
চক্ষু জরায়ু জীবনীশক্তি দেহযন্ত্র উপাসক কিশোরী অতীতকাহিনী জন্ম জ্ঞান তীর্থযাত্রা দেহাংশ
দেহ নর নরদেহ নারী দুগ্ধ কৈশোরকাল উপমা ন্যায় পবিত্রতা পাঁচশতশ্বাস পুরুষ
নাসিকা পঞ্চবায়ু পঞ্চরস পরকিনী নারীদেহ গর্ভকাল গবেষণা প্রকৃতপথ প্রয়াণ বন্ধু বর্তমানজন্ম
পালনকর্তা প্রসাদ প্রেমিক বসন পাছধড় প্রথমপ্রহর চিন্তা বাম বিনয় বিশ্বাসী ব্যর্থতা
বিদ্যুৎ বৃদ্ধা মানুষ মুষ্ক বার্ধক্য মুমুর্ষুতা পুরুষত্ব ভালোবাসা মন মোটাশিরা যৌবন
রজ রজপট্টি রজস্বলা শুক্র মূত্র যৌবনকাল মনোযোগ রজকাল শত্রু শান্তি শুক্রপাত
শুক্রপাতকারী শ্বাস সন্তান সৃষ্টিকর্তা শুক্রধর শেষপ্রহর মূলনীতি সন্তানপালন সপ্তকর্ম স্বভাব হাজারশ্বাস
ADVERTISEMENT
error: Content is protected !!