পাঁচশত বছর

৪৬/১. পাঁচশত বছর
Quincentenary (কুইনসেন্টিনারি)/‘شجر السفرجل’ (শাজারাল সুফারজেল)

ভূমিকা (Prolegomenon)
এটি বাঙালী পৌরাণিক চরিত্রায়ন সত্তা সারণী এর পাঁচশত শ্বাস পরিবারের গুরুত্বপূর্ণ বাঙালী পৌরাণিক রূপক পরিভাষা। এর বাঙালী পৌরাণিক মূলক সত্তা পাঁচশত শ্বাস। এর বাঙালী পৌরাণিক উপমান পরিভাষা অর্ধ বেলা। এর বাঙালী পৌরাণিক চারিত্রিক পরিভাষা ক্ষুল্লবাঙালী পৌরাণিক ছদ্মনাম পরিভাষা স্বল্প

অভিধা (Appellation)
পাঁচশত বছর (বাপৌমূ)বি পাঁচশত অব্দ, পাঁচশত কাল, Quincentenary (কুইনসেন্টিনারি), ‘شجر السفرجل’ (শাজারাল সুফারজেল) (শ্ববি) অর্ধদিন, অর্ধবেলা, স্বল্প (দেপ্র) এটি বাঙালী পৌরাণিক চরিত্রায়ন সত্তা সারণী এর পাঁচশতশ্বাস পরিবারের একটি বাঙালী পৌরাণিক রূপক পরিভাষা (সংজ্ঞা) ১. সাধারণত; পাঁচশত অব্দের সমষ্টিকে বাংলায় ‘পাঁচশত বছর বলা হয় ২. বাঙালী শ্বরবিজ্ঞানে ও বাঙালী পুরাণে, মৈথুনে স্তম্ভনের প্রয়োজনীয় সময়কে রূপকার্থে ‘পাঁচশত বছর বলা হয় (বাপৌছ) স্বল্প (বাপৌচা) ক্ষুল্ল (বাপৌউ) অর্ধবেলা (বাপৌরূ) পাঁচশত বছর (বাপৌমূ) পাঁচশত শ্বাস {বাং. পাঁচ + বাং. শত + বাং. বছর}

Quincentenary [কুইনসেন্টিনারি] (GMP)n পাঁচশত বার্ষিকী, পাঁচশত বছর পূর্তি, ‘شجر السفرجل’ (শাজারাল সুফারজেল) (ব্য্য) যেমন; Jubilee = পঞ্চাশ বছর, Centenary = একশত বছর ও Millenary = হাজার বছর। তেমনই; Quincentenary = পাঁচশত বার্ষিকী {}

পাঁচশত বছরের কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ উদ্ধৃতি (Some highly important quotations of 500-years)
১.   “ওরে পাঁচশত বছরে ঝরে পাতালে মেঘের বারি, ধরো তারে কৌশল করে হাজার বছর পাঞ্জালড়ি, কহে বলন হলে মরণ, পড়বি চুরাশিফেরে” (বলন তত্ত্বাবলী- ২৪৫)
২.   “অতঃপর; প্রভু অসিকে বললেন; “নেতা জিষ্ণু, অপত্য বংশের নেতা এবং তুমি বন্দী করে আনা সব মানুষ ও পশুদের সংখ্যা গণনা করো। লুটের সবকিছু দুইভাগ করে একভাগ দাও সৈন্যদের যারা যুদ্ধ করেছে এবং অন্যভাগ দাও সমাজের অন্যান্য লোকদের। সেসব সৈন্যদের ভাগে যত মানুষ, গোরু, গাধা, ভেড়া ও ছাগল পড়বে তার প্রতি পাঁচশত থেকে একটা করে প্রভুর কর রূপে পৃথক করে রাখতে হবে” (তৌরাত, গণনা, ৩১/২৫- ২৮)
৩.   “কানীন বললেন; কোনো এক মহাজনের নিকট দুইজন লোক সামর্থ্য ধারিত। একজন পাঁচশত সামর্থ্য এবং অন্যজন পঞ্চাশ সামর্থ্য ধারিত। তাদের কারও ঋণ পরিশোধ করার ক্ষমতা ছিল না বলে তিনি দয়া করে দু’জনকে ক্ষমা করে দিলেন। তাহলে বলো দেখি তাদের দু’জনের মধ্যে কে সে মনিবকে অধিক ভালবাসবে?” (ইঞ্জিল, ৩য় খণ্ড, লুক- ৭/৪১- ৪২)
৪.   “পাঁচশত ভিক্ষু নানাদেশ পর্যটন করে স্রাবস্তীর জেতবন বিহারে উপস্থিত হয়ে পৃথিবীর উন্নতাবনত অবস্থা সম্বন্ধে আলোচনায় রতো হলেন” (ত্রিপিটক, ধম্মপদ- ২৪৯)
৫.   “মহারাণী শ্যামবতী পঞ্চশত সহচরীসহ তাতে অগ্নিদগ্ধ হয়ে মৃত্যুমুখে পতিত হলেন। মহারাজ উদয়ন সমস্ত ঘটনা অবগত হয়ে মাগন্ধিয়ার প্রাণদণ্ডের বিধান করলেন (ত্রিপিটক, ধম্মপদ- ২৩৭)
৬.   “যেসব দেবতা পাঁচশত ঘোটক যোজনা করে পথে গমন করেন, তাদের বর্ণনাযুক্ত স্তব আমি দুঃশীম, পৃথবান, বেন, অসুর ও রাম এসব ধনাঢ্য রাজার নিকট পাঠ করেছি” (ঋবেসদ্বিখদম, সূ- ৯৩, ঋ- ১৪)
৭.   “সহি হলে পাঁচশতসন, সূচনা হয় বরিষণ, করো ধীরে বায়ু সঞ্চালন, হয় না যেন অধঃপতন” (বলন তত্ত্বাবলী- ২৪৪)
৮.   “সে বিষয়াদি এ পবিত্র গ্রন্থাদির কথামত কানীন পাপের জন্য যাকে মেরেছিলেন তাকে সমাধিস্থ করা হয়েছিল। পবিত্র গ্রন্থাদির কথামত তিনদিনের দিন তাকে মৃত্যু হতে জীবিত করা হয়েছে। পরে তিনি বাহক ও বাহিতদের দেখা দিয়েছিলেন। অতঃপর; তিনি একই সময়ে পাঁচশতেরও অধিক ভাইকে দেখা দিয়েছিলেন” (ইঞ্জিল, ৭মখণ্ড, করিন্থীয়- ১৫/৩- ৬)
৯.   “হে ইন্দ্র! চক্রের চতুর্দিকস্থিত শংকুর ন্যায় দাস বর্চির চতুর্দিকস্থিত পাঁচশত অনুচর ও হাজার অনুচরদের তুমি বিশেষভাবে বধ করেছিলে” (ঋবেসপ্রখচম, সূ- ৩০, ঋ- ১৫)

পাঁচশত বছরের সংজ্ঞা (Definition of euchry)
সাধারণত; পাঁচশত বছরের সমষ্টিকে পাঁচশতবছর বলে।

পাঁচশত বছরের আধ্যাত্মিক সংজ্ঞা (Theological definition of euchry)
বাঙালী শ্বরবিজ্ঞানে ও বাঙালী পুরাণে; মৈথুনে স্তম্ভনের জন্য প্রয়োজনীয় শুক্রপাতহীন পাঁচশত শ্বাসকে পাঁচশতবছর বলে।

সৌরজগৎ ও দেহজগতের তুলনামূলক আলোচনা (The comparison discussion of the solar and organismic system)
জেনে রাখা প্রয়োজন যে; সৌরজগতের গণনাপদ্ধতি ও দেহজগতের গণনা-পদ্ধতি এক নয়। এজন্য; সৌরজগতের পাঁচশত বছর দেহজগতের পাঁচশত বছর এক নয় নয়। সৌরজগতের পাঁচশত বছর ও  দেহ জগতের পাঁচশত বছর বা শ্বরবিজ্ঞানের পাঁচশত বছরের মধ্যে অনেক পার্থক্য রয়েছে। দেহ জগতের বছর গণনা করা হয় শ্বাস দ্বারা অন্যদিকে; সৌরজগতের বছর গণনা করা হয় সূর্য ও চন্দ্র দ্বারা। দেহ পঞ্জিকা দ্বারা পুরাণ নির্মাণ ও পরিচালিত হয়। অন্যদিকে; সৌরপঞ্জিকা দ্বারা কর্ম-বৃত্তি ও ব্যবসা পরিচালিত হয়। এছাড়া; সৌরজগৎ সম্পর্কে ন্যূনাধিক সবাই জানে। কিন্তু দেহজগৎ সম্পর্কে পারম্পরিক ভিন্ন অন্যেরা তেমন জানে না। নিচে দেহজগৎ ও সৌরজগতের পাঁচশতবছরের পার্থক্যগুলো তুলে ধরা হলো।

সৌরজগৎ ও দেহ জগতের পাঁচশত বছরের পার্থক্য (Difference of euchry of the solar system and organism.)

দেহজগৎ সৌরজগৎ
১.  দেহধামকে দেহজগৎ বলে। ১. সৌরমণ্ডলকে সৌরজগৎ বলে।
২. এক হাজার শ্বাসে একদিন হয়। ২.  পৃথিবী নিজ অক্ষের ওপর একবার ঘুরে এলে একদিন হয়।
৩. রজস্বলাদের পবিত্রতার সাতাশ সৌরদিনে একদিন হয়। ৩. সকাল ৬টা হতে পরের দিন সকাল ৬টা পর্যন্ত একদিন হয়।
৪. রজস্বলাদের রজকালের তিন বা সাড়ে তিন সৌরদিনে একরাত হয়। ৪. সূর্য অদৃশ্য হওয়ার পর হতে আবার সূর্য দৃশ্যমান হওয়া পর্যন্ত একরাত হয়।
৫. সারা বিশ্বের কোনো পরম্পরায় এ জগতের দিন-রাতের পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায় না। ৫. পৃথিবী, চন্দ্র ও মঙ্গল গ্রহভেদে এর দিন-রাতের ব্যাপক পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায়।
৬. এর দ্বারা পুরাণ নির্মাণ ও নৈতিক চরিত্রের উত্তরণ শিক্ষা দেওয়া হয়। ৬. এর দ্বারা পঞ্জিকা নির্মাণ ও সৌর দিন-রাতের গণনা নির্ধারণ করা হয়।
৭. এটি; সর্বকালে ও সর্বস্থলেই ধ্রূব। ৭. এটি; সর্বকালে ও সর্বস্থলেই আপেক্ষিক।

পাঁচশত বছরের পরিচয় (Identity of euchry)
এটি বাঙালী পৌরাণিক চরিত্রায়ন সত্তা সারণী এর পাঁচশত শ্বাস পরিবারের একটি বাঙালী পৌরাণিক রূপক পরিভাষা। রমণক্রিয়া আরম্ভ করার পর স্ত্রী জননিন্দ্রিয় হতে সর্বশেষ কামরস নিঃসরণের পূর্ববর্তী পাঁচশতশ্বাস সময়কে শ্বরবিজ্ঞানে পাঁচশত বছর বলা হয়। প্রায় পাঁচ হাজার বছর পূর্বে সময় নিরূপণ করার আধুনিকমাণের ঘড়ি, পঞ্জিকা ইত্যাদি কোনো যন্ত্র ছিল না তখন মৈথুনে নাসিকার নিঃশ্বাস দ্বারা মানুষ সময় নিরূপণ করতো। কামনদীতে প্রেমতরী বেয়ে ঠিক মাঝখানে যেতে গড়ে প্রায় পাঁচশত শ্বাস সময় লাগত। এ পাঁচশত শ্বাসকেই পাঁচশত বছর, পাঁচশত মাস, পাঁচশত সন্তান ইত্যাদি বলা হতো। এবং আধ্যাত্মিকভাবে একে সল্প বলা হতো। কামনদীর মাঝখান অর্থ কামযুদ্ধের স্ত্রী জননাঙ্গ হতে পরপর তিনবার অগ্নিজল নিক্ষিপ্ত হওয়ার পর শুক্রপাত না হওয়ার স্তম্ভন অবস্থায় পদার্পণ করা। শুক্ররণে রতো হওয়ার প্রায় পাঁচশত শ্বাস অতিক্রম হলে শুক্রপাত হওয়ার সম্ভাবনা প্রায় থাকে না। শ্বরবিজ্ঞানে শুক্ররণে শুক্রপাতহীনভাবে পাঁচশত শ্বাস সময় অতিবাহিত হওয়াকে এক সল্প বলে। এমন দুই স্বল্পে সাঁইদর্শন (দিদারে মুহাম্মাদ) এবং তিনস্বল্পে কাঁইদর্শন (দিদারে আল্লাহ) হয়। পাঁচশতবছর হলো পাঁচশত শ্বাস। কারণ; শ্বরবিজ্ঞানে বছরকে শ্বাস বলা হয়। অতি প্রাচীনকালে সময় নিরূপণের জন্য যখন কোনো মাধ্যম বা ব্যবস্থা ছিল না; তখন মানুষ নাকের শ্বাসের সাহায্যে কামনদী অতিক্রমণের সময়ের পরিমাণ নির্ণয় করতেন। মূলত তখনই মনীষীগণ লক্ষ্য করেছিলেন যে; কামনদীতে সন্তরণ করতে গিয়ে শুক্রপাতহীনভাবে অবিরত ইন্দ্রিয় চালনার দ্বারা প্রায় পাঁচশত শ্বাস সময়ের মধ্যে শিশ্ন দ্বারা যোনির পরিপূর্ণ তাপমাত্রা ধ্বংস বা শোষণ করা যায়। যার ফলে পরিপূর্ণ স্তম্ভন প্রতিষ্ঠা করা যায়।

মানবদেহের শ্বাসের গড় অনুযায়ী স্বাভাবিক প্রতি ২৪টি শ্বাসে মিনিট হয়। যারফলে; গড়ে প্রায় পাঁচশতটি স্বাভাবিক শ্বাস সমান একুশ মিনিট হয়। শিশ্ন ও যোনির তাপমাত্রার মধ্যে যে পার্থক্য রয়েছে মৈথুনে সন্তরণ করতে গিয়ে শুক্রপাতহীনভাবে অবিরত প্রায় একুশ মিনিট ইন্দ্রিয় চালনা করলে তা সমান হয়। কামনদী উত্তরণের প্রথমকাজ হলো স্তম্ভন। মৈথুনে শুক্রপাতহীন ভাবে অবিরত ইন্দ্রিয় চালনার দ্বারা প্রায় একুশ মিনিট বা পাঁচশত শ্বাস অতিক্রম হলে স্তম্ভন হয়। এ স্তম্ভনকেই আরবিভাষায় সলাত (ﺻﻟﻮﺓ) বলে। স্তম্ভনের দ্বারা শুক্রপাত না হওয়ার ধারণা নিশ্চিত হয়। এ স্তম্ভনশক্তি দ্বারা বৈতরণী বা যমদূতের নদী গয়া বা ফল্গু অতিক্রমণ করা যায়। কামনদী অতিক্রমণের নিশ্চয়তা হলো প্রতি মৈথুনে রতো হওয়া হতে পর পর তিনবার নিঃসৃত কামরস অতিক্রম করা। সাধুগণের মতে; মৈথুনে রতো হওয়ার সাত মিনিটের সময় প্রথম কামরস নিঃসৃত হয়। অতঃপর; শুক্রপাতহীনভাবে ইন্দ্রিয় চালনা অবিরত থাকলে চৌদ্দ মিনিটে দ্বিতীয় বার কামরস নিঃসৃত হয়। তারপর; ইন্দ্রিয় চালনা অবিরত থাকলে একুশ মিনিটে তৃতীয় বার কামরস নিঃসৃত হয়।

এখন বলা যায় যে; প্রতি মৈথুনে রতো হওয়া হতে শুক্রপাতহীনভাবে ইন্দ্রিয় চালনা অবিরত রাখলে তিনবার কামরস নিঃসৃত হয়। এতে একুশ মিনিট সময় বা পাঁচশতটি শ্বাস অতিবাহিত হয়। এ পাঁচশতটি শ্বাস বিগত হওয়ার পর পূর্ণস্তম্ভন প্রতিষ্ঠিত হয়। এ হতে আরবীয় অলি আব্দালগণ বিজয়কামিতা বা স্তম্ভনের জন্য বর্থ্যকে (শয়ত্বান. ﺷﻴﻁﺎﻦ) ৩টি পাথর মারার সংস্কার প্রবর্তন করেছেন। আরবিভাষায় একেই আকিমুসসলাত (.ﺍﻘﻢﺻﻟﻮﺓ) বলে। উল্লেখ্য যে; এর পর আর কোনো কামরস নিঃসৃত হয় না। যারফলে; নারীদের পরিপূর্ণ কামতৃপ্তি অনুভব হয়। এমন স্তম্ভন হতেই কামের বিজয় বা নিষ্কামিতার স্তর আরম্ভ হয়। শ্বরবিজ্ঞানে স্তম্ভনকেই সাধকের মৈথুন বিজয় বলা হয়। শ্বরবিজ্ঞানে; নরকে বলা হয় নিঃস্ব এবং নারী বা রজস্বলাকে বলা হয় ধনী। আরবীয় চমৎকার বা হাদিস (.ﺤﺪﻴﺚ) এ এমন বলা হয় “নিঃস্বরা ধনীদের পাঁচশত বছর পূর্বে স্বর্গে গমন করে।” অর্থাৎ; একজন পুরুষের জন্য স্তম্ভনই প্রকৃতস্বর্গ সুখ। একমাত্র স্তম্ভনের দ্বারাই শুক্রপাত না হওয়ার নিশ্চয়তা পাওয়া যায়। তাই; শ্বরবিজ্ঞানে স্তম্ভইকে স্বর্গসুখ বলা হয়। আলোচনার যবনিকায় এসে শক্ত করেই বলা যায় যে; দেহজগৎ ও সৌরজগতের সাময়িক গণনা এক নয়। আলোচ্য ‘বাঙালী পৌরাণিক মূলক সত্তা’র বাঙালী পৌরাণিক রূপক, উপমান, চারিত্রিক ও ছদ্মনাম পরিভাষার আলোচনা যথাস্থানে করা হয়েছে।

তথ্যসূত্র (References)

(Theology's number formula of omniscient theologian lordship Bolon)

১ মূলক সংখ্যা সূত্র (Radical number formula)
"আত্মদর্শনের বিষয়বস্তুর পরিমাণ দ্বারা নতুন মূলক সংখ্যা সৃষ্টি করা যায়।"

রূপক সংখ্যা সূত্র (Metaphors number formula)

২ যোজক সূত্র (Adder formula)
"শ্বরবিজ্ঞানে ভিন্ন ভিন্ন মূলক সংখ্যা-সহগ যোগ করে নতুন যোজক রূপক সংখ্যা সৃষ্টি করা যায়; কিন্তু, গণিতে ভিন্ন ভিন্ন সংখ্যা-সহগ যোগ করে নতুন রূপক সংখ্যা সৃষ্টি করা যায় না।"

৩ গুণক সূত্র (Multiplier formula)
"শ্বরবিজ্ঞানে এক বা একাধিক মূলক-সংখ্যার গুণফল দ্বারা নতুন গুণক রূপক সংখ্যা সৃষ্টি করা যায়; কিন্তু, মূলক সংখ্যার কোন পরিবর্তন হয় না।"

৪ স্থাপক সূত্র (Installer formula)
"শ্বরবিজ্ঞানে; এক বা একাধিক মূলক সংখ্যা ভিন্ন ভিন্ন ভাবে স্থাপন করে নতুন স্থাপক রূপক সংখ্যা সৃষ্টি করা যায়; কিন্তু, মূলক সংখ্যার কোন পরিবর্তন হয় না।"

৫ শূন্যক সূত্র (Zero formula)
"শ্বরবিজ্ঞানে মূলক সংখ্যার ভিতরে ও ডানে শূন্য দিয়ে নতুন শূন্যক রূপক সংখ্যা সৃষ্টি করা যায়; কিন্তু, মূলক সংখ্যার কোন পরিবর্তন হয় না।"

< উৎস
[] উচ্চারণ ও ব্যুৎপত্তির জন্য ব্যবহৃত
() ব্যুৎপত্তির জন্য ব্যবহৃত
> থেকে
√ ধাতু
=> দ্রষ্টব্য
 পদান্তর
:-) লিঙ্গান্তর
 অতএব
× গুণ
+ যোগ
- বিয়োগ
÷ ভাগ

Here, at PrepBootstrap, we offer a great, 70% rate for each seller, regardless of any restrictions, such as volume, date of entry, etc.
There are a number of reasons why you should join us:
  • A great 70% flat rate for your items.
  • Fast response/approval times. Many sites take weeks to process a theme or template. And if it gets rejected, there is another iteration. We have aliminated this, and made the process very fast. It only takes up to 72 hours for a template/theme to get reviewed.
  • We are not an exclusive marketplace. This means that you can sell your items on PrepBootstrap, as well as on any other marketplate, and thus increase your earning potential.

পৌরাণিক চরিত্রায়ন সত্তা সারণী

উপস্থ (শিশ্ন-যোনি) কানাই,(যোনি) কামরস (যৌনরস) বলাই (শিশ্ন) বৈতরণী (যোনিপথ) ভগ (যোনিমুখ) কাম (সঙ্গম) অজ্ঞতা অন্যায় অশান্তি অবিশ্বাসী
অর্ধদ্বার আগধড় উপহার আশ্রম ভৃগু (জরায়ুমুখ) স্ফীতাঙ্গ (স্তন) চন্দ্রচেতনা (যৌনোত্তেজনা) আশীর্বাদ আয়ু ইঙ্গিত ডান
চক্ষু জরায়ু জীবনীশক্তি দেহযন্ত্র উপাসক কিশোরী অতীতকাহিনী জন্ম জ্ঞান তীর্থযাত্রা দেহাংশ
দেহ নর নরদেহ নারী দুগ্ধ কৈশোরকাল উপমা ন্যায় পবিত্রতা পাঁচশতশ্বাস পুরুষ
নাসিকা পঞ্চবায়ু পঞ্চরস পরকিনী নারীদেহ গর্ভকাল গবেষণা প্রকৃতপথ প্রয়াণ বন্ধু বর্তমানজন্ম
পালনকর্তা প্রসাদ প্রেমিক বসন পাছধড় প্রথমপ্রহর চিন্তা বাম বিনয় বিশ্বাসী ব্যর্থতা
বিদ্যুৎ বৃদ্ধা মানুষ মুষ্ক বার্ধক্য মুমুর্ষুতা পুরুষত্ব ভালোবাসা মন মোটাশিরা যৌবন
রজ রজপট্টি রজস্বলা শুক্র মূত্র যৌবনকাল মনোযোগ রজকাল শত্রু শান্তি শুক্রপাত
শুক্রপাতকারী শ্বাস সন্তান সৃষ্টিকর্তা শুক্রধর শেষপ্রহর মূলনীতি সন্তানপালন সপ্তকর্ম স্বভাব হাজারশ্বাস
ADVERTISEMENT
error: Content is protected !!